1. numanashulianews@gmail.com : kazi sarmin islam : kazi sarmin islam
  2. admin@newstvbangla.com : newstvbangla : Md Didar
যে কারণে ইতিহাসে অম্লান ঐতিহাসিক আমতলী গেট - NEWSTVBANGLA
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৫৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম
থাইল্যান্ডে প্রধানমন্ত্রীকে লাল গালিচা উষ্ণ সংবর্ধনা দেওয়া হয় ৬০ কোটি টাকা মূল্যমানের কথিত কোবরা সাপের বিষ, বিদেশী আগ্নেয়াস্ত্র ও প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত বিবিধ সরঞ্জামাদিসহ ০৪ জন কুখ্যাত আন্তর্জাতিক চোরাকারবারিকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে ৫৩ কেজি গাঁজাসহ ০৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০; মাদক বহনে ব্যবহৃত পিকআপ জব্দ নিজ শরীরে বিশেষ কৌশলে বেধে বুপ্রেনরফিন বহনকালে বিপুল পরিমাণ ভয়াবহ মাদক বুপ্রেনরফিনসহ ০১ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ দক্ষ শ্রমিকের অভাবে কম মজুরিতে কাজ করতে হয় : মসিউর রহমান নওগাঁ সাহিত্য পরিষদের উদ্যোগে কবি’র আড্ডা নওগাঁয় তীব্র তাপদাহে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে কৃষ্ণচূড়া! সার্টিফিকেট জালিয়াতির ঘটনায় ওএসডি হয়েছেন বোর্ডের চেয়ারম্যান আলী আকবর এশিয়া ছিল ২০২৩ সালে জলবায়ু এবং আবহাওয়ার ঝুঁকির কারণে বিশ্বের সবচেয়ে দুর্যোগ-কবলিত অঞ্চল: জাতিসংঘ

যে কারণে ইতিহাসে অম্লান ঐতিহাসিক আমতলী গেট

অনলাইন ডেস্ক :

সারা বছরই অবহেলিত থাকে ২১ ফেব্রুয়ারির স্মৃতিবিজরিত ঐতিহাসিক আমতলা
বছরের ৩৬৫ দিনের মধ্যে ৩৬৩ দিনই থাকে অযত্নে-অবহেলায়। কেবল বছরের ২০ ফেব্রুয়ারি একদিন করা হয় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। ফলে ২১ ফেব্রুয়ারি এই এক দিন থাকে ঝকঝকে-তকতকে। তারপর ফের দখল। আবারো ময়লা আবর্জনা, দোকানপাট আর অবৈধ দখলে মলিন হয়ে যায় মহান ভাষা আন্দোলনের স্মৃতি বিজড়িত ঐতিহাসিক ‘আমতলা গেট’। বছরজুড়ে এমন চিত্রই বজায় থাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের গেট সংলগ্ন এই প্রাঙ্গণের।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সকালে সরেজমিনে আমতলা গেট ঘুরে দেখা যায়, অন্যান্য সময়ের চেয়ে ভিন্ন এক অবস্থা এই এলাকার। অবৈধ দোকানপাট ও ময়লা আবর্জনার স্তূপ নেই। আমতলা গেটের সামনে ও আশপাশ থেকে সবকিছুই সরানো হয়েছে। ছিটানো হয়েছে ব্লিচিং পাউডার। গেটে করা হয়েছে চুনকাম। সাদা রঙের বড় গেটটির ওপরে কালো রঙের একটি ছোট ব্যানারে লেখা রয়েছে— ‘ভাষা আন্দোলনের স্মৃতি বিজড়িত আমতলার ঐতিহাসিক প্রাঙ্গণ। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি এই দিনে ছাত্র সমাজ রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে মিছিল করে ১৪৪ ভঙ্গ করে।’

অথচ অন্যান্য সময়, গেটের একেবারে সামনে থেকে শুরু করে আশপাশে পসরা সাজিয়ে বসে কমপক্ষে ৩০-৪৫টির মতো ভাসমান দোকান। এসব দোকানে চা, পরোটা, ডিমসিদ্ধ, স্যুপ, সিগারেট, প্লাস্টিকের সামগ্রী, বালিশ, কম্বল, ফলের জুস, পাটি, ভাত, তরকারি, কিছু মেলামাইন-ইলেকট্রনিক সামগ্রী ও ওয়ানটাইম প্লেট বিক্রি করা। দোকানের ময়লা-আবর্জনা ও চায়ের দোকানের পানিতে তৈরি হয় স্যাঁতস্যাঁতে অবস্থা। জানা গেছে, এই স্থানের নিয়ন্ত্রণ করে শক্তিশালী সিন্ডিকেট। তাদের ছায়া ছাড়া এখানে কেউ দোকান নিয়ে বসতে পারেন না। অবশ্য সেজন্য প্রতিদিনই পরিশোধ করতে হয় নির্ধারিত পরিমাণের চাঁদা।

দোকানভেদে ১০০ টাকা থেকে শুরু করে দেড় হাজার টাকা পর্যন্ত চাঁদা দিতে হয় সেই প্রভাবশালী মহলকে। তারাই ‘ম্যানেজ’ করে থানা-পুলিশ কিংবা যথাযথ কর্তৃপক্ষকে। তাই উচ্ছেদ অভিযান কিংবা অন্যান্য নির্দেশনা অনেকটা থোরাই কেয়ার করেন তারা। চোর-পুলিশ খেলার মতো এসব অভিযানে তারা বেশ অভ্যস্থ হয়ে গেছেন। যে কারণে ইতিহাসে অম্লান ঐতিহাসিক আমতলী গেট ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি (বাংলা ৮ ফাল্গুন ১৩৫৮) মাতৃভাষা আন্দোলনের চূড়ান্ত রূপ ধারণ করলেও এর সূচনা হয়েছিল অনেক আগেই। ১৯৪৭ সালে দ্বিজাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে ভাগ হয়ে তৈরি হয়েছিল পশ্চিম ও পূর্ব পাকিস্তান।

প্রায় দুই হাজার কিলোমিটারের অধিক দূরত্বের ব্যবধানে অবস্থিত পাকিস্তানের এই দুটি অংশের মধ্যে সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ভৌগোলিক এবং ভাষাগতসহ অসংখ্য মৌলিক পার্থক্য বিদ্যমান ছিল। তারপরও ১৯৪৮ সালে পূর্ব পাকিস্তান তথা পূর্ব বাংলা ইসলামী করণের অংশ হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়, উর্দুই হবে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা। পাশাপাশি বিকল্প হিসেবে আরবি হরফে বাংলা লিখন অথবা সমগ্র পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা আরবি করারও প্রস্তাব দেওয়া হয়। এমন ঘোষণায় বিক্ষোভে ফেটে পড়েন বাংলাদেশের (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান/পূর্ব বাংলা) মানুষজন।

বাংলাভাষী সাধারণ জনগণের মধ্যে জন্ম হয় তীব্র ক্ষোভের। যার ফলে পূর্ব বাংলায় ভাষা রক্ষার আন্দোলন দ্রুত দানা বাঁধে। আর আন্দোলন দমনে পুলিশ ১৪৪ ধারা জারি করে। ফলে ঢাকা শহরে মিছিল, সমাবেশ ইত্যাদি বেআইনি ও নিষিদ্ধ হয়ে যায়। এরপর নানান ঘটনাপ্রবাহের শেষে চূড়ান্ত পরিণতি ঘটে ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি (৮ই ফাল্গুন ১৩৫৮)। পুলিশের ১৪৪ ধারার আদেশ অমান্য করে ছাত্র, প্রগতিশীল কিছু রাজনৈতিক কর্মী ও সাধারণ মানুষ মিলে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করেন। মিছিলটি ঢাকা মেডিকেল কলেজের কাছাকাছি আমতলা গেটের কাছে আসলেই পুলিশ ১৪৪ ধারা ভাঙ্গের অজুহাতে আন্দোলনকারীদের ওপর গুলিবর্ষণ করে।

মুহূর্তেই মাটিতে লুটিয়ে পড়েন রফিক, সালাম, বরকত ও আব্দুল জব্বারসহ নাম না জানা অনেকেই। বাংলা ভাষাকে রক্ষার জন্য এই ত্যাগ বিশ্বের বুকে তৈরি করেছে অনন্য নজির। বাংলা ভাষা পেয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষার সম্মান। অবশ্য পঞ্চাশ ও ষাটের দশকের ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবেও বড় জায়গা দখল করে রেখেছে এই আমতলা প্রাঙ্গণ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ গ্রন্থেও (পৃষ্ঠা-৯৬) উঠে এসেছে এই আমতলার ইতিহাস। তিনি লিখেছেন, ‘১৯৪৮ সালের মার্চের ১৬ তারিখ সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ে সাধারণ ছাত্রসভায় আমরা সবাই যোগদান করেছিলাম। হঠাৎ কে যেন আমার নাম প্রস্তাব করে বসল সভাপতির আসন গ্রহণ করার জন্য। সবাই সমর্থন করল।

বিখ্যাত আমতলায় এই আমার প্রথম সভাপতিত্ব করতে হলো। অনেকেই বক্তৃতা করল।’ তবে এতকিছুর পরও অরক্ষিত, অবহেলিত এই ঐতিহাসিক ‘আমতলা গেট’। সাধারণ মানুষজন বলছেন, ভাষা আন্দোলন বাঙালি জাতির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি ঘটনা। এই গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার সঙ্গে ঐতিহাসিক আমতলা গেট ওতপ্রোতভাবে জড়িত। তাই এই স্থানের যথার্থ সংরক্ষণ এবং যত্ন সারা বছরই করা উচিত। সামিউল ইসলাম নামের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী বলেন, অনেক সময় নিজের কাছেই কষ্ট লাগে। এত গুরুত্বপূর্ণ স্থানটি প্রায় সারা বছর দখলে থাকে। শুধুমাত্র ২১শে ফেব্রুয়ারিকে কেন্দ্র করে এক থেকে দুই দিন দখল মুক্ত করা হয়। এটি হওয়া উচিত নয়। বরং সারা বছরই এর যথাযথ সংরক্ষণ করা উচিত। কারণ এটি আমাদের ইতিহাসের অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2015
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: রায়তাহোস্ট