1. numanashulianews@gmail.com : kazi sarmin islam : kazi sarmin islam
  2. admin@newstvbangla.com : newstvbangla : Md Didar
লেখাপড়া শুরু করলেন ৮৭ বছরের বৃদ্ধা - NEWSTVBANGLA
বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
বাংলাসহ বিশ্বের সকল ভাষা-শহীদগণের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা: প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি ঘানার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন সাংবাদিকের জন্য ২ কোটি ৩ লাখ টাকা অনুমোদন নওগাঁর সাপাহারে সরফতুল্লাহ ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রের ৫৯ জন পরীক্ষার্থী বহিষ্কার গণ পাঠাগার এর উদ্যোগে একুশে বইমেলা ২০২৪ উদ্বোধন মান্দায় জিয়া সাইবার ফোর্সের উদ্যোগে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আমতলীর অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার না থাকায় ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা হারিয়ে যেতে বসেছে আবহমান বাংলার চিরচেনা রক্তলাল শিমুল গাছ ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার আন্দোলন অব্যাহত থাকবে : বিএনপি যে কারণে ইতিহাসে অম্লান ঐতিহাসিক আমতলী গেট

লেখাপড়া শুরু করলেন ৮৭ বছরের বৃদ্ধা

প্রতিনিধি

লেখাপড়া শেখার কোনও বয়স হয় না, সেই কথা আবার প্রমাণ করলেন বছর ৮৭-এর এক বৃদ্ধা। মিশরের বাসিন্দা ওই বৃদ্ধার ছেলেবেলা থেকেই পড়াশোনা শেখার শখ, কিন্তু পারিবারিক চাপের জন্য আলাদা করে লেখাপড়া করার সময় ও সুযোগ কোনওটাই হয়নি তাঁর।

জুবাইদা আবদেল এখন তাঁর লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। সাক্ষরতার শংসাপত্র পাওয়াই এখন তাঁর জীবনের লক্ষ। শিক্ষিত হয়ে জীবনে অন্তত এক জনকে শিক্ষিত করে তুলতে পারলেও তাঁর জীবন সার্থক বলে জানিয়েছেন তিনি। মিশরের বাসিন্দাদের মধ্যে সরকারি তরফে একটি সাক্ষরতার অভিযান চালানো হয়েছিল। আর এই কারণেই বৃদ্ধ বয়সে নতুন করে শিক্ষিত হওয়ার সুযোগ পেয়েছে জুবাইদার মতো আরও অনেকেই।

আট সন্তানের মা জুবাইদা। এক ছেলে ও এক মেয়েকে হারিয়েছেন তিনি। ১৪ জন নাতিপুতি নিয়ে জুবাইদার ভরা সংসার। ছেলেবেলা থেকেই লেখাপড়া শিখতে চাইতেন তিনি। তবে তাঁর বাবার রক্ষণশীল মনোভাবের কারণে সেই সুযোগ হয়নি তাঁর। বাবার মৃত্যুর পর বোনদের জোর করে পড়াশোনা শেখান জুবাইদা। তবে নিজের জন্য ভাবার আর সুযোগ হয়নি। ১৮ বছর বয়সে বিয়ে হয় তাঁর। সন্তানদেরও তিনি জোর করে স্কুলে ভর্তি করান। ছেলেমেয়েরা যেন স্কুল থেকে পালিয়ে যেতে না পারে তার জন্য স্কুলের বাইরে জিনিসপত্র নিয়ে বসতেন তিনি। ছেলেমেয়েদের অনুকরণ করে লেখাপড়া শেখার চেষ্টা চালিয়ে যেতেন জুবাইদা।সরকারি তরফে লেখাপড়া করার সুযোগ পেয়ে বেজায় খুশি জুবাইদা। মিশর সরকারের এই উদ্যোগ ২০২২-এর জুলাই মাসে শুরু হয়। গত ডিসেম্বরের শেষ পর্যন্ত দেশব্যাপী প্রায় ৯০০০ জন এই প্রকল্পে অংশ নিয়েছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2015
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: রায়তাহোস্ট