সরকার ঘোষিত ”সর্বাত্মক” লকডাউনে শর্ত মেনে চলবে নাটকের শুটিং

post top

বিনোদন ডেস্ক : দেশে চলছে সরকার ঘোষিত ‘সর্বাত্মক লকডাউন’। এক সপ্তাহের এই লকডাউন চলাকালীন নাটকের শুটিং বন্ধ রাখবেন বলে বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা একমত হলেও, জরুরি ক্ষেত্রে কিছু শর্ত মেনে স্বল্পপরিসরেচ শুটিং করা যাবে বলে নতুন নির্দেশনা এসেছে।

টেলিভিশনের পাঁচ সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই নির্দেশনার কথা জানানো হয়েছে। যেখানে স্বাক্ষর করেছেন নাটকের সংগঠন এফটিও, টেলিপ্যাব, ডিরেক্টরস গিল্ড, অভিনয়শিল্পী সংঘ, টেলিভিশন নাট্যকার সংঘের নেতারা।

তাদের এই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে- প্রতিদিন আমরা শিল্পী ও কলাকুশলীদের করোনায় আক্রান্ত হবার খবর পাচ্ছি, যা অত্যন্ত উদ্বেগজনক। জীবনের আগে কাজ হতে পারে না! লকডাউনে সকল প্রকার চিত্রধারণের কাজ আন্তসংগঠন বন্ধ রাখার ব্যাপারে একমত পোষণ করেছে। সরকার ঘোষিত প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া লকডাউনের আওতামুক্ত বিধায় অতি জরুরি চিত্র ধারণ স্বল্প পরিসরে নিম্ন লিখিত শর্ত পূরণ করে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সম্পাদন করে সেলফ কোয়ারেন্টান সম্পন্ন করতে নির্দেশনা দেওয়া হলো।

বিজ্ঞপ্তিতে যেসব শর্তের কথা বলা হয়েছে:

আন্তঃসংগঠনের দেয়া স্বাস্থ্য বিধি কঠোরভাবে মেনে কাজ শেষ করতে হবে।

দৃশ্য ধারণের আগে সংশ্লিষ্ট ইউনিট প্রধান সকল শিল্পী কলাকুশলীর তাপমাত্রা পর্যবেক্ষণ এবং শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে সর্বশেষ তথ্য অবহিত থাকবেন।

করোনার এই তীব্রতার মধ্যে পরিস্থিতি বিচারে কোন শিল্পী, কলাকুশলীকে তাঁর ইচ্ছার বিরুদ্ধে চিত্রধারণ কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করার ব্যাপারে জোর করা যাবে না। এই পরিস্থিতিতে যে কোন শিল্পী সঙ্গত যুক্তি দেখিয়ে চুক্তিবদ্ধ কাজ থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করতে পারবেন।

ঢাকা শহর অথবা ঢাকার বাইরে চিত্রধারণে সংশ্লিষ্ট ইউনিট যথাযথ স্বাস্থ্য বিধি মেনে সকল শিল্পী কলাকুশলীদের আনা নেয়ার জন্য পর্যাপ্ত গাড়ির ব্যাবস্থা করবেন।

সদস্যবৃন্দের যে কোন পরিস্থিতি এড়াতে নিজ নিজ সংগঠনের পরিচয়পত্র সাথে রাখবেন।

যেহেতু প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ আছে অতীব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হওয়া যাবে না। বিধায় জরুরি প্রয়ােজনে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কর্তৃক প্রদত্ত চলাচলের অনুমতি পত্র (মুভমেন্ট পাস) নিয়ে বের হবেন।

এই স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা হচ্ছে কিনা তা দেখার জন্য চার সদস্যের পর্যবেক্ষক দল গঠনের কথাও বলা হয় বিজ্ঞপ্তিতে। সাজ্জাদ হোসেন দোদুল, মুনিরা ইউসুফ মেমি, পিকলু চৌধুরী ও আহসান আলমগীর ওই পর্যবেক্ষক দলে আছেন।

print

Share this post

post bottom

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

19 − 11 =