যেভাবে অফিসে ডায়েট করবেন

post top

মেদ ভুঁড়ির অন্যতম কারণ অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যভাস। বিশেষ করে যাদের দিনভরই থাকতে হয় অফিসে, তাদের তো কথাই নেই। ব্যস্ততার কারণে দীর্ঘক্ষণ না খেয়ে থাকা কিংবা ক্ষুধা দূর করার জন্য হুট করে অস্বাস্থ্যকর স্ন্যাকস খেয়ে ফেলা, তাদের নিত্যদিনের রুটিন। অন্যদিকে সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ক্লান্তির কারণে শরীরচর্চাটাও করা হয় না। ফলে অনিয়মই যেন হয়ে ওঠে কর্মজীবীদের নিয়ম!

তবে সুস্থ থাকতে কর্মজীবনেও নিয়ন্ত্রিত খাদ্যভাস মেনে চলা সম্ভব। এ জন্য দরকার কার্যকরী ডায়েট প্ল্যান। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক অফিসে ডায়েট করার নিনজা টেকনিক-

বাসার খাবার অফিসে খান

বাহিরের খাবার যত কম খাওয়া যায়, ততই ভালো। বুদ্ধিমানের কাজ হবে বাসার তৈরি খাবার অফিসে নিয়ে যাওয়া। এটি শরীর সুস্থ রাখার পাশাপাশি অযথা খরচের হাত থেকেও বাঁচাবে আপনাকে। সঙ্গে মেদ ভুঁড়ির বালাই থাকবে না।

অফিসের পর হাঁটুন

সম্ভব হলে অফিস ছুটির পর কিছুক্ষণ হেঁটে নিন। যাদের বাড়ি ও অফিসের দূরত্ব কম তারা হেঁটেই যাওয়া আসা করতে পারেন। এটি সুস্থ ও কর্মক্ষম রাখবে আপনাকে।

নিয়মিত পানি পান করুন

অনেকেই আছেন কাজের প্রেশারে ঠিকমতো পানি পান করেন না। এজন্য অফিসের ডেস্কের পাসেই পানির বোতল রাখুন। নিয়মিত পান খান। নিয়মিত পানি পান আপনাকে দূরে রাখবে বিভিন্ন রোগ থেকে।

বাদাম রাখুন সঙ্গে

কাজের ফাঁকে হুট-হাট খিদা লাগে। কিন্তু হাতে বেশি কাজ থাকায় খেতে ইচ্ছে করে না। তবে হাতের নাগালে বাদাম রাখলে ঝটপট চিবিয়ে খাওয়া সম্ভব। ফলে তাৎক্ষণিক খুদা মিটবে। পাশাপাশি পেটে গ্যাস জমবে না। যা আপনারকে ফিট রাখতে সহযোগিতা করবে।

ফল খান নিয়মিত

কাজের ফাঁকে ফল খেতে পারেন। কাটা ফল খেতে যেমন সময় লাগে না, তেমনি স্বাস্থ্যও ভালো রাখে এটি। সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে জাঙ্ক ফুড ও কোল্ড ড্রিংক এড়িয়ে চলার কোনও বিকল্প নেই।

print

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eleven − one =