‘কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনস নিয়ে চীন-সঙ্গে কাজ করবে না যুক্তরাষ্ট্র।

post top

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ও চীনের সঙ্গে করোনার ভ্যাকসিন উন্নয়ন, তৈরি এবং বণ্টনে একত্রে কাজ করবে না যুক্তরাষ্ট্র। আর এই কারণেই ‘কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনস গ্লোবাল এক্সেস (কোভেক্স) ফেসিলিটি’ পরিকল্পনার সঙ্গে যুক্ত হতে অনাগ্রহী দেশটি। খবর ওয়াশিংটন পোস্টের।

ট্রাম্প প্রশাসন বলছেন, ‘তারা নিজেদের মতো করে তাদের আন্তর্জাতিক বন্ধু রাষ্ট্রদের নিয়ে এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়বে। কিন্তু চীন ও ‘দুর্নীতিগ্রস্ত’ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে একত্রে কাজ করবে না’।

বুধবার হুয়াইট হাউজের মুখপাত্র জুদ দ্বীরি এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেন।

ডব্লিউএইচও এবং চীনের নেতৃত্বে কোভেক্স ফেসিলিটি পরিকল্পনার আওতায় বিশ্বের প্রায় ১৭০টিরও বেশি দেশ একত্র হয়ে কাজ করার ইচ্ছা পোষণ করেছে।

তবে যুক্তরাষ্ট্র না থাকলেও দেশটির ঐতিহ্যবাহী মিত্র জাপান, জার্মানি এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন থাকছে এই পরিকল্পনায়। যার মূল লক্ষ্য হচ্ছে করোনার উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোতে কম মূল্যে এই ভাইরাসের ভ্যাকসিন পৌঁছে দেয়া।

কিন্তু আমেরিকা এই পরিকল্পনার সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা না করায় পরিকল্পনাটি বাস্তবায়ন করতে কাঠখড় পোড়াতে হবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে, এমনটাই বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

জেনেবার গ্লোবাল হেলথ সেন্টারের সহকারি পরিচালক সুরিও মুন বলেন, ‘যখন যুক্তরাষ্ট্র বলছে তারা একাধিক দেশের সঙ্গে কোনো চুক্তিতে যাবে না, সেটা সবার জন্য এক বড় ধাক্কা। তাই সব দেশের উচিত বিশ্ব রাজনীতিকে পেছনে রেখে এই ভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিষ্কারে এক ছাতার নিচে এসে কাজ করা।’

জর্জটাউন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্ব স্বাস্থ্য বিভাগের অধ্যাপক লরেন্স গসটিন বলেন, ‘ভ্যাকসিন আবিষ্কারে একাকি পথ বেছে নিয়ে আমেরিকা বড় জুয়া খেলছে।’

করোনা ভাইরাস শুরুর পর থেকেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প করোনাকে ‘চীনের ভাইরাস’ বলে আখ্যায়িত করে আসছেন। তার দাবি, চীনারা কৃত্রিমভাবে এই ভাইরাস উহানের গবেষণাগারে তৈরি করে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিয়েছে।

এছাড়া বিশ্বব্যাপী এই ভাইরাস ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে দায়ী করেছেন ট্রাম্প।

print

Share this post

post bottom

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fifteen + twenty =