করোনার পরিস্থিতির মধ্যেও বড় বিদেশি বিনিয়োগ পেয়েছে ভারত

post top

এশিয়া থেকে আমেরিকা, ইউরোপ থেকে আফ্রিকা করোনার থাবায় বিপর্যস্ত হয়েছে সব অঞ্চলের অর্থনীতিই। তবে প্রতিকূল এ পরিস্থিতিতেও ২০২০ সালে ভারতে প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) এসেছে ৬৪০ কোটি মার্কিন ডলারের। 

জাতিসংঘের বাণিজ্য ও উন্নয়ন বিষয়ক সম্মেলনের (ইউএনসিটিএডিডি) ওয়ার্ল্ড ইনভেস্টমেন্ট রিপোর্টে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।  

ভারতীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই প্রত্যক্ষ বিনিয়োগে বিশ্বে রেকর্ড গড়েছে ভারত। ২০২০-২০২১ অর্থবছরে ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৫ লাখ ৯২ হাজার ২৮৩ কোটি টাকা বিদেশি বিনিয়োগ এসেছে দেশটিতে। এর মধ্যে শুধু গুজরাটেই বিদেশি বিনিয়োগ এসেছে ২ লাখ ১৯ হাজার ৯৮ কোটি টাকার।  

গুজরাটের বিভিন্ন কম্পিউটার হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার সংশ্লিষ্ট খাতেই এ বিদেশি বিনিয়োগ এসেছে। 

ভারতীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে আরও বলা হচ্ছে, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভেও ভারত নতুন রেকর্ড করেছে। মনে করা হচ্ছে, করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও ভারতে বিদেশি বিনিয়োগ বন্ধ না হওয়ার কারণে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ভারতে অনেক বেশি। 

চলমান এই মহামারি মানুষের জীবনযাত্রায় বড় ধরনের প্রভাব ফেলেছে। করোনার বিস্তার ঠেকাতে মানুষকে বলা হয়েছে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে। এর ফলে বিশ্বব্যাপী ডিজিটাল অবকাঠামো এবং পরিষেবার চাহিদা বৃদ্ধি পায়। আর সে কারণেই এ খাতে বিদেশি বিনিয়োগ বেশি এসেছে। 

বড় বিনিয়োগ এসেছে অ্যামাজনেও। এখানে প্রায় ২৮ কোটি ডলারের বিনিয়োগ এসেছে। আগামী দিনেও এ সমস্ত শিল্পক্ষেত্রে বিনিয়োগ বাড়তে থাকবে বলে আশা সংশ্লিষ্টদের।  

ভারতে সবচেয়ে বেশি টাকা বিনিয়োগ করেছে সিঙ্গাপুর। মোট বিনিয়োগের প্রায় ২৯ শতাংশ। যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রত্যক্ষ বিনিয়োগ এসেছে ২৩ শতাংশ। আর মরিশাসের বিনিয়োগ ৯ শতাংশ।

রাষ্ট্রায়ত্ত তেল সংস্থায় ১০০ শতাংশ প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ নিয়ে প্রস্তাব
বিলগ্নিকরণে নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে এমন রাষ্ট্রায়ত্ত তেল ও গ্যাস উৎপাদন ও বিপণন সংস্থায় ১০০% প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগে এখন আর সরকারের অনুমতি নিতে হবে না- এই মর্মে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার অনুমোদন চেয়ে একটি খসড়া প্রস্তাব পাঠিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা এই প্রস্তাবে অনুমোদন দিলে ভারত পেট্রোলিয়াম করেপোরেশন লিমিটেডের (বিপিসিএল) বেসরকারিকরণে গতি আসবে। এয়ার ইন্ডিয়া, বিপিসিএলসহ একাধিক রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার বিলগ্নিকরণের মাধ্যমে চলতি অর্থবছরে ১.৭৫ লাখ কোটি টাকা জোগাড় করার লক্ষ্য বাজেটে ঘোষণা করেছিলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন।

print

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

12 + nineteen =