আশুলিয়ার বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড়

post top

আব্দুল্লাহ আল নোমান, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, সাভার (ঢাকা): পবিত্র ঈদুল-আযহার ছুটিতে সাভারের আশুলিয়ার বিনোদন কেন্দ্রগুলো দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড়ে কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। করোনার কারণে টানা আড়াই বছর পহেলা বৈশাখ ও দুই ঈদসহ বড় বড় উৎসবে ঘর থেকে বের হতে পারেনি সাধারণ মানুষ। তাই বিনোদন কেন্দ্র ও পার্কগুলো ছিল প্রায় শূন্য! বৈরী এই সময় পার করে ঈদ আনন্দে মেতে উঠেছে আশুলিয়াবাসী। শুধু আশুলিয়া নয়, দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বিনোদন প্রিয় মানুষেরা আশুলিয়ার বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রে ভিড় করছেন।

সোমবার (১১ জুলাই) সকাল থেকেই বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্র যেমন, আশুলিয়ার জামগড়া এলাকার ফ্যান্টাসি কিংডম, বাড়ইপাড়া এলাকার নন্দন পার্ক, শিমুলিয়ার রংধনুসহ বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রে বিনোদনপ্রেমী মানুষজন আসতে শুরু করে। তবে গতকাল ১০ জুলাই ঈদের নামাজ শেষে কোরবানিতে ব্যস্ত থাকায় বিকেলের দিকে বিনোদন কেন্দ্র ও পার্কগুলোতে তেমন একটা ভিড় লক্ষ করা যায়নি।

সরেজমিনে, ফ্যান্টাসি কিংডম, ওয়াটার কিংডম, এক্সট্রিম রেসিং, মেটাল আটলান্টিক ও হেরিটেজ পার্কসহ পাঁচটি বিনোদন কেন্দ্র নিয়ে এবারের ঈদে বর্ণালি সাজে সেজেছে কনকর্ড এন্টারটেইনমেন্ট কো. লিমিটেডের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ফ্যান্টাসি কিংডম কমপ্লেক্স। বিশ্বমানের আদলে গড়া বিভিন্ন ধরণের রাইডস নিয়ে সাজানো পার্কটি বিনোদনপিপাসু বিভিন্ন বয়সী মানুষের কাছে প্রিয়।

পার্কে সকাল থেকে আশুলিয়ার থিম পার্ক ফ্যান্টাসি কিংডমে শত শত মানুষ আসতে শুরু করে। মূল গেটে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা মানুষের ভিড় দেখা গেছে। ঈদের ছুটিতে যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছে এই বিনোদন কেন্দ্র। ভেতরে ঢুকেই আনন্দে মেতে উঠেছেন বিভিন্ন বয়সের নারী, পুরুষ ও শিশুরা।

আশুলিয়ার থিম পার্ক ফ্যান্টাসি কিংডমে প্রবেশে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে মানুষদের। ভেতরে প্রবেশের পর পার্কের সকল রাইডসে মানুষজনকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। অনেকে আবার লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে রাইডে উঠার জন্য অপেক্ষা করছেন।

পার্কটিতে রয়েছে দুই ধরনের প্যাডেল বোড, উত্তেজনাকর রোলার কোস্টার, জায়ান্ট গ্লু, সান্তা মারিয়া, ম্যাজিক কার্পেট, হ্যাপি ক্যাঙ্গারু, বাম্পার কার, ওয়ার্লি বার্ড, বাম্পার বোট, জিপ অ্যারাউন্ড, ওয়াটার অ্যাডভেঞ্চার, ইজি ডিজি, জুজু ট্রেনসহ মজার সব রাইড। খাওয়া-দাওয়ার জন্য আছে ছোট-বড় ফুড কোর্ট। রয়েছে থ্রি স্টার মানের লিয়া রেস্টুরেন্ট।

নরসিংদী থেকে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে ফ্যান্টাসি কিংডমে ঘুরতে এসেছেন আওলাদ হোসেন। তিনি জানান, চাকরি করার কারণে বাচ্চা নিয়ে ঘুরতে বের হতে পারেন না তিনি। ঈদে ছুটি পাওয়ায় তিনি তার স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে এসেছেন ফ্যান্টাসি কিংডমে। এখানে এসে তারা খুব খুশি, বিশেষ করে তার ছোট সন্তানদ্বয়।

রাজধানীর মালিবাগ থেকে এসেছেন আসমা ইয়াসমিন। তিনি জানান, গত দুই বছরের ঈদের চেয়ে এবার ঈদ আমাদের জন্য একটু আনন্দদায়ক। কারণ গত দুই বছরে মানুষ বাসা থেকেও বের হতে
পারেনি। পার্কেও আসতে পারেনি। এবার ঈদে চলে এসেছি। খুব ভালো লাগছে।

কনকর্ড এন্টারটেইনমেন্ট কো. লিমিটেডের হেড অফ মিডিয়া এন্ড পি আর মো. মাহফুজুর রহমান জানান, ঈদের আনন্দকে আরো বাড়িয়ে দিতে এবার ফ্যান্টাসি কিংডমে ঈদ-পরবর্তী সাত দিনের জন্য ১২শ’ টাকার প্যাকেজে চারটি রাইডসহ দুপুরের খাবার অথবা রাতের খাবর এবং ১৫শ’ টাকার প্যাকেজে আটটা রাইডসহ দুপুরের খাবার বা রাতের খাবার থাকবে। থাকবে গেম শো এবং ডিজে শো। এছাড়া দর্শনার্থীদের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তার জন্য পার্কের নিরাপত্তাকর্মীদের পাশাপাশি পুলিশ ও আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করছে।

শুধু আশুলিয়ার ফ্যান্টাসি কিংডম নয়, আশুলিয়ার নন্দন পার্কসহ বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রে মানুষের ভিড় দেখা গেছে। বিকেলে তা আরো কয়েকগুণ বাড়বে বলে জানা গেছে।

print

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × 4 =