আশুলিয়াবাসীর শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে বিদায় নিলেন ওসি শেখ রিজাউল হক দিপু

post top

আব্দুল্লাহ আল নোমান, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট: সারা বাংলাদেশের অফিসার ইনচার্জদের (ওসি) আইকন, বাংলাদেশ পুলিশের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র, ঢাকা জেলায় পর পর বেশ কয়েকবারের নির্বাচিত শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ শেখ রিজাউল হক দিপু’কে বদলী জনিত বিদায় সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে আশুলিয়ার বাইপাইলস্থ থানা কমপ্লেক্সে আশুলিয়া থানা পুলিশের উদ্যোগে এ বিদায় সংবর্ধনা প্রদান করা হয়।

এসময় শেখ রিজাউল হক দিপুকে ফুল দিয়ে বিদায় সংবর্ধনা জানান পুলিশ কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। তিনি আপাতত এক মাস ঢাকা রেঞ্জ অফিসে বিশ্রামে থেকে অনেকটা স্বেচ্ছায় পরবর্তী কর্মস্থল হিসেবে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানায় অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হিসেবে যোগদান করবেন বলে জানা গেছে। এদিকে আশুলিয়া থানায় ওসি শেখ রিজাউল হক দিপুর স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গুলশান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান পিপিএম।

আশুলিয়া থানার নবনিযুক্ত অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান কে দায়িত্বভার বুঝিয়ে দেন ওসি শেখ রিজাউল হক দিপু।

বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সাইদুর রহমান পিপিএম। এসময় অন্যান্যের মধ্যে সাভার সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মো. শহিদুল ইসলাম, সাভার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এএফএম সায়েদ, ধামরাই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা, আশুলিয়া থানার বিদায়ী পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ, আশুলিয়া থানার নবনিযুক্ত পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জিয়াউল ইসলাম, পুলিশ পরিদর্শক (ইন্টেলিজেন্স) নির্মল কুমার দাস, পুলিশ পরিদর্শক এ কে এম ফজলুল হক, এসআই সুদীপ কুমার গোপ, এসআই হারুন অর রশিদ, এসআই এমদাদুল হক, এসআই আজহারুল ইসলাম, এসআই ফজর আলী, এসআই জসিম উদ্দিন, এসআই মহির উদ্দিন, এসআই তারেক নূর, এসআই কাজী নাসের, এসআই শেখ নাসের খান, এসআই সামিউল ইসলাম, এসআই আল মামুন কবির, এসআই টুম্পা সাহা, এএসআই পবিত্র কুমার মালাকার, এএসআই আতিকুর রহমান, এএসআই রাহাত হাসান, এএসআই আব্দুস সালাম, এএসআই কল্পনা আক্তার সহ আশুলিয়া থানা পুলিশের সকল সদস্যগণ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
আশুলিয়া থানার পুলিশ কর্মকর্তাদের সাথে ওসি শেখ রিজাউল হক দিপু।

এসময় পুলিশ কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ওসি শেখ রিজাউল হক দিপুর কৃতিত্বের কথা গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে বলেন, আশুলিয়া থানার ইতিহাসে এমন ভালো মনের পুলিশ কর্মকর্তা আশুলিয়াবাসী আর কোনদিন পায়নি। বক্তারা বলেন, শেখ রিজাউল হক দিপু অত্যন্ত সাহসী পুলিশ কর্মকর্তা, যে ব্যক্তি সৎ সে অবশ্যই সাহসী হবে এটাই স্বাভাবিক। বক্তব্য প্রদান কালে প্রতিটি বক্তাই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন এবং আশাবাদ ব্যক্ত করেন শেখ রিজাউল হক তার ভালো কাজের মধ্যদিয়ে পদোন্নতি পেয়ে পেয়ে একদিন বাংলাদেশ পুলিশের উচ্চ শিখরে পদায়ন হবেন।

অনুষ্ঠানের শেষের দিকে বক্তব্য দিতে গিয়ে আবেগআপ্লুত হয়ে পড়েন সকলের প্রিয় ওসি শেখ রিজাউল হক দিপু। এ সময় পুলিশের একাধিক কর্মকর্তাও আবেগআপ্লুত হয়ে পড়েন।

ওসি শেখ রিজাউল হক দিপু আশুলিয়া থানা এলাকা থেকে মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ নির্মূলসহ অত্যন্ত নিষ্ঠা ও সততার সাথে অফিসার ইনচার্জের দ্বায়িত্ব পালন করায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সরবরাহকারী সমিতির পক্ষ থেকে ক্রেষ্ট ও সম্মাননা পেয়েছেন। তিনি আশুলিয়া থানায় যোগদানের পর থেকেই পুলিশের কঠোর নজরদারি ও তৎপরতায় দিশেহারা হয়ে পড়ে আশুলিয়ার মাদক ব্যবসায়ীসহ জড়িতরা। আশুলিয়া থানা পুলিশের একের পর এক অভিযানে বড় বড় মাদকের চালান ধরা পড়ে, গ্রেফতার হয় মাদক ব্যবসায়ীরাও। বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসে মানুষ যখন দিশেহারা, ঠিক তখন আশুলিয়াবাসীকে সকল প্রকার সহযোগিতার ঘোষণা দেন তিনি। এছাড়া করোনা ভাইরাসে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেন তিনি। সরকারি দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে একপর্যায়ে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন রাজধানীর ইমপালস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন বাংলাদেশ পুলিশের মানবিক এই কর্মকর্তা।

সংবর্ধনা ক্রেষ্ট উপহার দেয়া হয়।

আশুলিয়ার স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ওসি শেখ রিজাউল হক দিপুর মতো একজন সৎ দক্ষ এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে বজ্রকন্ঠী আওয়াজ তোলা পুলিশ কর্মকর্তার দূরদর্শী নেতৃত্বে আশুলিয়ার অধিকাংশ অপরাধ তৎপরতা কমে গেছে। তার এই বদলী জনিত বিদায় আমরা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছি না। তিনি পরবর্তী কর্মস্থল হিসেবে যেখানেই যোগদান করুক না কেনো ভালোবাসা ও শ্রদ্ধায় তিনি আমাদের হৃদয়ে সব সময় থাকবেন।

ওসি শেখ রিজাউল হক এর সততা ও ন্যায়-নিষ্ঠায় সমগ্র আশুলিয়াবাসী গর্ববোধ করেন। আশুলিয়াবাসী মনে করেন, বাংলাদেশের প্রতিটি থানায় তার মতো সৎ পুলিশ অফিসার যেদিন থাকবে সেদিনই বাংলাদেশ হয়ে উঠবে নিরাপদ, সুন্দর ও শান্তিময় দেশ।

শেখ রিজাউল হক দিপু ২০১৮ সালের ২ সেপ্টেম্বর আশুলিয়া থানায় যোগদানের পর থেকে সিংহভাগ মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীরা তার নেতৃত্বে গ্রেপ্তার হয়েছেন। মাদকের সাথে তিনি সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি, ছিনতাই, ডাকাতি নির্মূলে জিরো টলারেন্স নিয়ে কাজ করে গেছেন। আশুলিয়া থানায় যোগদানের পর থেকে তার এ্যাকশন মুখি অভিযানের আতঙ্কে স্থানীয় শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী এলাকা ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে বলে জানান এলাকার সাধারন জনতার অনেকেই।

১৯৭৭ সালের ১৭ই নভেম্বর গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ার পূন্যভূমির এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন শেখ রিজাউল হক দিপু। তার ডাক নাম দিপু। পিতা মরহুম শেখ ইকরামুল হক। তিনি সেবার ব্রত নিয়ে ২০০০ সালে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে যোগদান করেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গানম্যান হিসেবে তিনি দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া বাংলাদেশের বিভিন্ন থানায় দায়িত্ব পালন এবং সর্বশেষ নানা সমস্যায় জর্জরিত অবস্থায় আশুলিয়ার পাশ্ববর্তী ধামরাই থানা থেকে বদলী হয়ে গত ২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং সালে আশুলিয়া থানার হাল ধরেন শেখ রিজাউল হক দিপু।

তিনি আশুলিয়ায় যোগদানের পর থেকেই নিজের বুদ্ধিমত্তা আর অক্লান্ত পরিশ্রমে প্রায় মাদকমুক্ত ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির যথেষ্ট উন্নতি লাভ করে আশুলিয়া থানা। এছাড়াও নানা কারনে বেশ আলোচিত ও সব শ্রেণী পেশার মানুষের কাছে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছেন তিনি। বিশেষ করে থানায় জিডি ও মামলা করতে কোন টাকা লাগে না বলে থানার দেয়ালে সাটানো প্রজ্ঞাপন দেখে মুগ্ধ নানা অসুবিধায় পড়া মানুষগুলো। এতে বেশ সুনাম-সুখ্যাতিও কুড়িয়েছেন তিনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি ভাইরাল হয়ে গোটা দেশবাসীর নজরে পড়েন কীর্তিমান এই পুলিশ কর্মকর্তা। আশুলিয়ার সর্বত্র বাসা বাড়ী ও হাট-বাজারে চুরি-ডাকাতি এবং কিশোর-যুবকদের বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড বন্ধের চেষ্টা চালিয়ে গেছেন তিনি প্রতিনিয়ত। এছাড়া একাধিক ভুমিদূস্যতা, দখল-বেদখলসহ আইন-শৃংখলা পরিপন্থী কার্যক্রম রুখতে পারদর্শীতা দেখিয়ে গেছেন তিনি।

আশুলিয়া থানার একাধিক পুলিশ অফিসার বলেন, স্যারের মতো এমন অফিসার পাওয়া সত্যিই ভাগ্যের ব্যাপার। প্রতিটি ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে তিনি সঠিক সিদ্ধান্ত দিতেন। স্যারের মতো দক্ষ, সৎ ও কর্তব্যপরায়ন পরোপকারী পুলিশ কর্মকর্তা বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর জন্য গর্ব।

ওসি শেখ রিজাউল হক দিপু।

স্থানীয় বেশ কয়েকজন সাংবাদিক জানান, পুলিশের কিছু সদস্য যারা নিজের ডিপার্টমেন্টের সুনাম রক্ষায় দিন-রাত নিরলস ভাবে কাজ করে পুলিশের ভাবমূর্তিকে জনতার মাঝে প্রশংসিত করে যাচ্ছেন। তাদেরই একজন আশুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ রেজাউল হক দিপু। “পুলিশ জনতা, জনতাই পুলিশ” তিনি তার আচার-আচরণ, কথা-বার্তায় জনগণকে তা বুঝিয়ে দিয়েছেন। তিনি থানা পুলিশের একজন সর্বোচ্চ কর্মকর্তা হলেও তার মাঝে সেরকম কোন ভাব নেই। যিনি ধনী-গরিব বুঝেন না। তিনি শুধু বোঝেন তিনি জনগনের একজন সেবক। জনগণকে সেবা দেওয়াই যার লক্ষ্য।

অত্যন্ত সৎ, সাহসী ও সদা হাস্যোজ্জ্বল কোমল স্বভাবের মেধাবী এই পুলিশ কর্মকর্তার বদলী জনিত বিদায়ে শুভেচ্ছা জানিয়ে তার ভবিষ্যত সফলতা, সুস্বাস্থ্য ও দির্ঘায়ু কামনা করেছেন দৈনিক স্বাধীন সংবাদ পত্রিকার ঢাকা জেলা ব্যুরো চীফ সাংবাদিক আলমাস হোসেন এবং সাংবাদিক আব্দুল্লাহ আল নোমান।

নিউজটি শেয়ার করুন।

print

Share this post

post bottom

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × 2 =