আজ অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী হুমায়ূন আহমেদের

post top

বাংলা সাহিত্যের কিংবদন্তি কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ। দেশের নাট্য ও চলচ্চিত্র জগতেও তার বিরাট অবদান। বহু নাটক এবং বেশ কিছু দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্র তিনি নির্মাণ করেছেন। নিজের অসাধারণ লেখনি ও নির্মাণশৈলী দিয়ে নিজেকে তিনি বইপ্রেমী এবং সিনেপ্রেমীদের মনে স্থায়ী আসন গেড়ে বসে আছেন। আজ সেই কিংবদন্তি সাহিত্যিক ও নির্মাতার অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী।

প্রতি বছরই প্রয়াত হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুবার্ষিকীর দিন সকাল থেকে তার হাতে গড়া নুহাশ পল্লীর লিচু তলায় ভিড় করতে শুরু করেন ভক্ত, কবি, লেখক আর নাট্যজনেরা। ফুল দিয়ে গভীর শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় স্মরণ করেন জনপ্রিয় এই লেখককে। দিনটি উপলক্ষে গাজীপুরের নুহা পল্লীতে কোরআনখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং এতিমদের খাবার বিতরণসহ নেয়া হয় নানা কর্মসূচি।

জও তার ব্যতিক্রম নয়। সরজমিনে দেখা গেছে, হুমায়ূন আহমেদের অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে রবিবার সকাল থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শুরু করেছেন হুমায়ূন আহমেদের ভক্তরা। হলুদ পাঞ্জাবি পরা হিমু ও নীল শাড়ি পড়ে রুপা সেজে হিমু পরিবহনের সদস্যরাও আসছেন। কবরে ফুল দিয়ে গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করছেন নাট্যব্যক্তিত্ব, সাহিত্যিকসহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষ। তবে করোনা আতঙ্কের কারণে অন্যান্য বছরের তুলনা এই সংখ্যা অনেকটাই কম।

১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলার কুতুবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ। তার বাবা ফয়েজুর রহমান ও মা আয়েশা ফয়েজ। ২০১২ সালে ১৯ জুলাই মারণব্যধি ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে তিনি নিউ ইয়র্কের একটি হাসপাতালে মারা যান।

print

Share this post

post bottom

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twenty − 16 =